Loading...
Wednesday, February 15, 2017

একুশে ফেব্রুয়ারি নিয়ে কবিতা

একুশের কবিতা আবু জাফর ওবায়দুল্লাহ

মাগো, ওরা বলে--------------------------আবু জাফর ওবায়দুল্লাহ

কুমড়ো ফুলে ফুলে
নুয়ে পড়েছে লতাটা, সজনে ডাঁটায় ভরে গেছে গাছটা,
আর আমি ডালের বড়ি শুকিয়ে রেখেছি।
খোকা তুই কবে আসবি ?
কবে ছুটি?
চিঠিটা তার পকেটে ছিল ছেঁড়া আর রক্তে ভেজা।
মাগো, ওরা বলে সবার কথা কেড়ে নেবে।
তোমার কোলে শুয়ে গল্প শুনতে দেবে না।
বলো, মা, তাই কি হয়?
তাইতো আমার দেরি হচ্ছে।
তোমার জনে কথার ঝুড়ি নিয়ে তবেই না বাড়ি ফিরবো।
লহ্মী মা, রাগ করো না, মাত্রতো আর কটা দিন।
পাগল ছেলে,মা পড়ে আর হাসে,
তোর ওপরে রাগ করতে পারি !
নারিকেলের চিড়ে কোটে,
উড়কি ধানের মুড়কি ভাজে,
এটা-সেটা আর কত কী
তার খোকা বাড়ি ফিরবে ক্লান্ত খোকা।
কুমড়ো ফুল শুকিয়ে গেছে,
ঝরে পরেছে ডাঁটা,
পুঁই লতাটা নেতানো
খোকা এলি ?
ঝাপসা চোখে মা তাকায়
উঠানে উঠানে
যেখানে খোকার শব শকুনীরা ব্যবচ্ছেদ করে।
এখন মার চোখে চৈত্রের রোদ পুরিয়ে দেয় শকুনীদের।
তারপর দাওয়ায় ব’সে মা আবার ধান ভানে,
বিন্নি ধানের খই ভাজে,
খোকা তার কখন আসে কখন আসে
এখন মার চোখে শিশির
ভোর স্নেহের রোদে ভিটে ভরেছে।
ডাউনলোড করুন
মাগো ওরা বলে mp3
২১ শে ফেব্রুয়ারী কবিতা একুশে ফেব্রুয়ারি কবিতা একুশে ফেব্রুয়ারি নিয়ে কবিতা একুশে ফেব্রুয়ারির কবিতা
২১ শে ফেব্রুয়ারী কবিতা
একুশের কবিতা আল মাহমুদ



ফেব্রুয়ারির একুশ তারিখ
দুপুরবেলার অক্ত
বৃষ্টি নামে, বৃষ্টি কোথায়?
বরকতের রক্ত? হাজার যুগের সূর্যতাপে
জ্বলবে, এমন লাল যে,
সেই লোহিতেই লাল হয়েছে
কৃষ্ণচূড়ার ডাল যে!প্রভাতফেরির মিছিল যাবে
ছড়াও ফুলের বন্যা
বিষাদগীতি গাইছে পথে
তিতুমীরের কন্যা।
চিনতে নাকি সোনার ছেলে
ক্ষুদিরামকে চিনতে?
রুদ্ধশ্বাসে প্রাণ দিলো যে
মুক্ত বাতাস কিনতে?
পাহাড়তলীর মরণ চূড়ায়
ঝাঁপ দিলো যে অগ্নি,
ফেব্রুয়ারির শোকের বসন
পরলো তারই ভগ্নি। প্রভাতফেরি, প্রভাতফেরি
আমায় নেবে সঙ্গে,
বাংলা আমার বচন, আমি
জন্মেছি এই বঙ্গে।

আজ আমি এখানে কাঁদতে আসিনি, ফাঁসির দাবী নিয়ে এসেছি-

কবি মাহবুবুল আলম

এখানে যারা প্রাণ দিয়েছে
রমনার উধ্বমুখী কৃষ্ণচূড়ার নিচে
যেখানে আগুনের ফুলকির মতো
এখানে ওখানে জ্বলছে রক্তের আলপনা,
সেখানে আমি কাঁদতে আসিনি।

আজ আমি শোকে বিহ্বল নই,                   
আজ আমি ক্রোধে উম্মত্ত নই,
আমি আজ রক্তের গৌরবে অভিষিক্ত।...

যে শিশু আর কোনদিন তার পিতার কোলে
ঝাঁপিয়ে পড়ার সুযোগ পাবে না,

যে গৃহবধূ আর কোনদিন তার স্বামীর প্রতীক্ষায়
আঁচলে প্রদীপ ঢেকে দুয়ারে আর
দাঁড়িয়ে থাকবে না,

যে জননী খোকা এসেছে বলে উদ্দাম আনন্দে
সন্তানকে আর জড়িয়ে ধরতে
পারবে না,

যে তরুণ মাটিতে লুটিয়ে পড়বার আগে বার বার
একটি প্রিয়তমার ছবি চোখে
আনতে চেষ্টা করেছিল,

তাদের সবার নামে আমি শাস্তি দাবী করতে এসেছি
এই বিশ্ববিদ্যালয়ের উন্মুক্ত প্রাঙ্গণে আমি তাদের
ফাঁসির দাবী নিয়ে এসেছি

যারা আমার অসংখ্য ভাইবোনকে হত্যা করেছে,
যারা আমার হাজার বছরের ঐতিহ্যময় ভাষায়
অভ্যস্ত মাতৃ সম্বোধনকে
কেড়ে নিতে গিয়ে
আমার এইসব ভাইবোনদের হত্যা করেছে,
আমি তাদের ফাঁসির দাবী নিয়ে এসেছি।
[আংশিক]
একুশের প্রথম কবিতা এটি ।

 আরও পড়ুন 

একুশে ফেব্রুয়ারি গান

২১ ফেব্রুয়ারি আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস

0 comments:

Post a Comment

 
TOP